জিকা ভাইরাসঃ বাংলাদেশ কী তৈরী?  Banner Photo

Ω author: Shakhawat Hossain Akash

 92  2  0

এবছরের আলোচিত ঘটনার মধ্যে অন্যতম হলো রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে ডেঙ্গু জ্বরের প্রকপ। ডেঙ্গু জ্বরের এই মহামারী আকার আমাদের চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়েছে যে আমরা কত অসাবধান এবং হেলাফেলা করে এসেছি ডেঙ্গু নিয়ে। ডেঙ্গুর প্রকপের আগাম সতর্ক করা সত্যেও যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ না করার ফলে এরকম অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতির স্বীকার হতে হয়েছে। ডেঙ্গু জ্বরের সাথে সাথে আমরা এডিস মশার নাম শুনে থাকি। এডিস মশা ডেঙ্গু, চিকুনগুনিয়া ছাড়াও আরো একটি রোগের ভাইরাস বহন করে, সেটি হলো জিকা ভাইরাস। জিকা ভাইরাস ডেঙ্গুর মতো প্রাণঘাতি নয় তবে এর কিছু ক্ষতিকারক প্রভাব আছে। এডিস মশার দৌরাত্ব এতো বেড়েছে যে এখন আশঙ্কা করা হচ্ছে জিকা ভাইরাস যে কোনো মুহূর্তে বাংলাদেশে ছড়িয়ে পড়তে পারে। কিন্তু জিকা ভাইরাস সনাক্ত করার জন্য প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি কি আমাদের আছে নাকি সেটিই এখন চিন্তার বিষয়। কিন্তু কী এমন ঝুঁকি আছে জিকা ভাইরাসে সে প্রশ্ন আপনাদের অনেকের মাথায় খেলা করছে। তাহলে আসুন জেনে নেই জিকা ভাইরাস সম্পর্কে কিছু তথ্য।

জিকা ভাইরাসের ভয়াবহতার ইতিবৃত্তঃ


জিকা ভাইরাস সম্পর্কে ইতোমধ্যে জেনেছি যে এটি এডিস মশার মাধ্যমে ছড়িয়ে থাকে। এটি প্রথম সনাক্ত করা হয় ১৯৪৭ সালে এক ধরণের বানরের শরীরে উগান্ডাতে। মানবদেহে প্রথম সনাক্ত করা হয় ১৯৫৪ সালে নাইজেরিয়াতে। এরপর আফ্রিকা, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া ও প্যাসিফিক অঞ্চলে এর প্রাদুর্ভাব দেখা যেতে থাকে। তবে তখনও জিকা ভাইরাসের ভয়াবহতার কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি। গিটে গিটে ব্যাথা, জ্বর, র‍্যাশ, চোখ লাল হওয়া এর মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিলো। কিন্তু ২০১৫ সালের দিকে ব্রাজিলে দেখা যায় জিকা ভাইরাসের মারাত্মক ক্ষতিকারক প্রভাব। দেখা যায় যে গর্ভবতী নারীদের জিকা ভাইরাসের দ্বারা আক্রান্ত হলে, শিশু মাইক্রোসেফালিতে আক্রান্ত হতে পারে। এতে করে শিশুর মাথার আকৃতি ছোট হয়, মস্তিষ্কের গঠন বৃদ্ধি হ্রাস পায়। এমনকি শিশুরা বুদ্ধি প্রতিবন্ধী বা দেরিতে বেড়ে ওঠার প্রবনতা দেখা যায়।

জিকার কারনে স্নায়ু বিকল হয়ে যেতে পারে যাতে করে পক্ষাঘাতগ্রস্থ হওয়ার ও সম্ভাবনাও থাকে।

অর্থাৎ যে ভাইরাসকে প্রথমে গুরুত্ব দিয়ে দেখা হয়নি সেই ভাইরাস পরবর্তীতে সুদূরপ্রসারি ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। চিকিৎসাবিজ্ঞানীরা চেষ্টা করছেন এর প্রতিষেধক ওষুধ বানানোর চেষ্টা করছে কিন্তু এটি প্রস্তুত করতে আরো কয়েক বছর লেগে যেতে পারে এবং তা ব্যয়বহুলও হতে পারে।

বাংলাদেশে জিকার ঝুঁকিঃ


বাংলাদেশে যে হারে এডিস মশার প্রকপ বেড়েছে, জিকা ভাইরাস আমাদের দেশে এসে পৌঁছালে তা ভয়ানক আকার ধারণ করার সম্ভাবনা নিয়ে আসবে। ২০১৫ সালে ব্রাজিলের জিকার প্রাদুর্ভাবের কারনে বাংলাদেশের এয়ারপোর্টে সতর্কতা অবলম্বন করা হয়। এখন আবারো সেই সতর্ক অবস্থানে আসার সময় এসেছে কিন্তু সরকারী উদ্যোগের বেশ অভাব দেখা যাচ্ছে। বাংলাদেশের ডায়াগনিস্টিক সেন্টারগুলোতেও জিকা সনাক্তকরণের প্রযুক্তি এখনো আসেনি। শুধু সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রন ও গবেষণা ইন্সটিটিউট এ জিকা সনাক্ত করার ব্যবস্থা আছে। অর্থাৎ পুরোপুরি ভাবে বাংলাদেশ এখনো প্রস্তুত নয় জিকা ভাইরাসের প্রতিরোধের জন্যে। বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা WHO এর ধারণা মতে ভারতে এর প্রাদুর্ভাব দেখা যেতে পারে আর ভারতে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়লে বাংলাদেশে তা দ্রুতই এসে পড়বে। এটি হতে পারে মানুষের অভিবাসন বা ভ্রমণের ফলে অথবা মশারাও সীমান্ত পাড়ি দিয়ে এই দেশে আসতে পারে। সারা বাংলাদেশে এডিস মশা ছড়িয়ে আছে আনাচে কানাচে বিশেষ করে ঢাকাতে বেশি।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের কীটতত্ত্বের অধ্যাপক কবিরুল বাশার বলেছে যে বাংলাদেশের প্রতিটি গ্রামে এবং শহরে যেভাবে এডিস মশার ঘনত্ব রয়েছে জিকা ভাইরাস এই দেশে আসলে তা দ্রুতই ছড়িয়ে পড়বে।

তাছাড়া জিকা ভাইরাস উষ্ণ অঞ্চলগুলোতে বংশ বিস্তার বেশি করে থাকে। বিশ্ব উষ্ণতার বৃদ্ধির ফলে এই ভাইরাসগুলো শক্তিশালী হওয়ার সম্ভাবনা বৃদ্ধি পাচ্ছে। অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশও জিকা ভাইরাসের বংশ বৃদ্ধির জন্য সহায়ক পরিবেশ দিয়ে থাকে।

জিকা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়ঃ 

  • জাতীয় প্রতিষেধক ও সামাজিক চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানের ভাইরাস বিশেষজ্ঞ মোহাম্মদ জামাল উদ্দিন বলেছেন, বিমানবন্দরের মতো জায়গায় স্ক্রিনিং করা জরুরী যাতে করে জিকা আক্রান্ত ব্যক্তি যেন প্রবেশ না করতে পারে। এজন্য আমাদের বিমানবন্দরগুলোতে জিকা পরীক্ষার সক্ষমতা থাকতে হবে। অন্তত এডিস মৌসুমে জিকার কথা মাথায় রাখতে হবে। তাঁর তথ্য মতে, জিকার পরীক্ষা মেশিন ডায়াবেটিস পরীক্ষার মতো দ্রুত বের করা যায় এজন্য আমাদের সেই প্রযুক্তি এখনই আনা জরুরী।
  • এডিস মশার মৌসুমের সময় এডিস মশা নিধনের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। অভিযোগ আছে যে একই রকম কীটনাশক বহু বছর ব্যবহার করার ফলে এডিস মশা এই কীটনাশকের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলেছে। তাই কীটনাশকের ধরণও বদলাতে হবে।
  • বাংলাদেশের হাসপাতার, ক্লিনিকগুলোতে দ্রুত জিকা সনাক্ত করণের প্রযুক্তি আনতে হবে। শহর এবং গ্রাম উভয়ের দিকেই গুরুত্ব দিতে হবে। ভুলে গেলে চলবে না, আমাদের দেশে জিকার ঘনত্ব অনেক বেশি।
  • এডিস মশার উপর বারংবার জরিপ করা প্রয়োজন যাতে জিকার প্রাদুর্ভাব আমরা মোকাবেলা করতে পারি।
  • সরকারি কর্মকর্তা এবং সিটি কর্পোরেশন পরস্পরকে দোষারোপ করতে দেখা গিয়েছে সম্প্রতী এডিস মশা ইস্যুতে। এই ব্যাপারে নিজেদের মধ্যে সমন্বয় অত্যন্ত জরুরী।
  • এডিস মশার বংশ বিস্তৃতির ক্ষেত্রে যেসকল সতর্কতা অবলম্বন করা দরকার যেমন- যেখানে সেখানে পরিষ্কার পানি যেনো না জমে এইসকল বিষয়গুলো খেয়াল রাখতে হবে আমাদের সকলকেই।


তথ্যসূত্রঃ

  1. https://www.bbc.com/bengali/news-49744565
  2. https://www.kalerkantho.com/online/lifestyle/2016/01/30/319167
  3. https://www.ntvbd.com/health/37345/জিকা-ভাইরাস-কেন-ভয়াবহ 
Share On Facebook

please login to review this blog and to leave a comment.


More From PlexusD

এবারের ডেঙ্গু কেনো অন্যবারের চেয়ে আলাদা?

published on: 22 Jul, 2019

এবারের ডেঙ্গু কেনো আলাদা?: এবারের ডেঙ্গু জ্বরের সাথে আগের মিল নেই। নতুন কোন শক্তিশালী ডেঙ্গু ভাইরাস দিয়ে ছড়ানো এই অসুখ এবার ঢাকায় রীতিমতো মহামারি ...

 6367    2    0 
ডেঙ্গুঃ কারণ, লক্ষণ, প্রতিকার এবং প্রতিরোধ!

published on: 21 Jul, 2019

এই বর্ষায় বৃষ্টির সাথেখিচুড়ি তাে উপভােগ করবেনই, তবে আপনারা যাতে সুস্থতার সাথেতা করতে পারেন তাইগুরুত্বপূর্ণ এক...

 1737    2    0 
ডায়াবেটিস নিয়ে মানুষের যত ভুল ধারণা!

published on: 10 Jul, 2019

বাংলাদেশে ২০৩৫ সালের মধ্যে ডায়াবেটিস রোগীর সংখ্যা দাঁড়াবে ১২৩ মিলিয়নে! নগরায়ন ও শ...

 1699    4    1 

More From Health & Lifestyle

ডায়াবেটিস নিয়ে মানুষের যত ভুল ধারণা!

author: Hasnat Zahan Shapla

বাংলাদেশে ২০৩৫ সালের মধ্যে ডায়াবেটিস রোগীর সংখ্যা দাঁড়াবে ১২৩ মিলিয়নে! নগরায়ন ও শ...

 1699    4    1 
হৃদরোগের ওষুধঃ কিডনির বন্ধু নাকি শত্রু?

author: Shakhawat Hossain Akash

আমাদের দেহের গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গের মধ্যে হৃদপিণ্ড এবং কিডনি অন্যতম। একদিকে হৃদপিণ্ড যখন সারা শরীরের অক্সিজেন সমৃদ্ধ রক্ত সঞ্চালনের কাজ করে , অন্যদিকে কিডনি রক্তের ফিল্টার করে ও বর্জ্যগুলো বের করে ...

 1136    2    0 
স্বাস্থ্যসংক্রান্ত যে দশটি ভুলে হুমকির মুখে আপনার জীবন

author: Hasnat Zahan Shapla

মধ্যযুগের বিখ্যাত ফার্সি কবি শেখ সাদির একটি উক্তি আছে, ” ভুল করা কোনো সমস্যা নয়, কারণ যে ভুল করেনা সে মানুষ নয়”। তবে মানুষের সব ভুল কিন্তু শোধরানো যায়না। এই আমাদের স্বাস্থ্যের কথাই ধরুন না। স্বাস্থ...

 448    2    0